মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট

মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট ১৯৬১ সালে তৎকালীন পাকিসত্মানের কৃষি ও পূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীনে ‘সয়েল সার্ভে প্রজেক্ট অব পাকিসত্মান’ নামে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর ১৯৭২ সালে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন ‘মৃত্তিকা জরিপ বিভাগ’ রূপে পরিচিতি লাভ করে। ১৯৮৩ সালে কৃষি ও বন মন্ত্রণালয়ের অধীনে মৃত্তিকা জরিপ  বিভাগটির পুনর্গঠন, সম্প্রসারণ এবং নতুন নামকরণ করে বর্তমান ‘মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট’ তথা Soil Resource Development Institute (SRDI) প্রতিষ্ঠা করা হয়। মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট একটি গবেষণা ও সম্প্রসারণ ধর্মী সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। এর প্রথম ও প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে বাংলাদেশে কৃষি ক্ষেত্রে সার্বিক ও টেকসই উন্নয়ন জোরদারকরণের নিমিত্তে সরকারী, আধা-সরকারী, সম্প্রসারণ, গবেষণা ও উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানগুলোকে দেশের ভূমি ও মৃত্তিকা সম্পদের বিভিন্নমুখী ব্যবহারের আলোকে শ্রেণীবিন্যাসের মাধ্যমে উন্নয়ন এলাকা চিহ্নিত করে স্থানভিত্তিক মৃত্তিকা ও ভূমির বিভিন্ন গুণাগুণ, বৈশিষ্ট্য, প্রতিবন্ধকতা এবং উন্নয়ন সম্ভাবনা বিষয়ক উপাত্ত ও তথ্যাদি মানচিত্রসহ সরবরাহ করা। মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট পটুয়াখালী জেলা কার্যালয়টি ১৯৮৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

সাধারণ তথ্যঃ

আকাশচিত্র বিশ্লেষণ, মাঠ থেকে মৃত্তিকা নমুনা, তথ্যাদি সংগ্রহ এবং গবেষণাগারে নমুনার রাসায়নিক বিশ্লেষণের মাধ্যমে ইতোমধ্যে পটুয়াখালী জেলার সবক‘টি উপজেলার ‘‘ভূমি ও মৃত্তিকা সম্পদ ব্যবহার নির্দেশিকা’’ প্রস্ত্তত ও প্রকাশ করা হয়েছে। সম্প্রতি পটুয়াখালী সদর, দুমকি, মির্জাগঞ্জ, কলাপাড়া, বাউফল উপজেলা পুনরায় জরিপের মাধ্যমে নবায়নকৃত উপজেলা নির্দেশিকা প্রকাশ করা হয়েছে। ইউনিয়ন পর্যায়ে সুষম সার ব্যবহারের লক্ষ্যে ইউনিয়ন ভূমি, মাটি ও সার সুপারিশ সহায়িকা প্রস্ত্তত অব্যাহত আছে। এ যাবৎ পটুয়াখালী সদর উপজেলার ৫টি, দুমকি উপজেলার ৪টি, মির্জাগঞ্জ উপজেলার ৬টি, গলাচিপা উপজেলার ২টি, কলাপাড়া উপজেলার ২টি এবং বাউফল উপজেলার ১টি ইউনিয়নের ভূমি, মাটি ও সার সুপারিশ সহায়িকা প্রকাশ করা হয়েছে।  এছাড়াও ইউনিয়ন ভিত্তিক বিভিন্ন ফসলের সার সুপারিশ সম্বলিত ফেষ্টুন প্রস্ত্তত করে বিতরণ করা হয়েছে। মাটি ও পানির লবণাক্ততা নিরুপণ এবং উর্বরতা পরিবীক্ষণ কার্যক্রম নিয়মিত পরিচালনা করা হচ্ছে।

 

মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট কর্তৃক পটুয়াখালী জেলার জরিপ লব্ধ ভূমি ও মৃত্তিকার তথ্যাবলী নিমেণ দেয়া হলোঃ

১। পটুয়াখালী জেলার কৃষি পরিবেশ অঞ্চল

পটুয়াখালী জেলায় ২টি কৃষি পরিবেশ অঞ্চল সনাক্ত করা হয়েছে।

ক) গংগা কটাল পলল ভূমি (এইজেড-১৩): উপজেলার পূর্বাংশ বাদে অবশিষ্ট সম্পূর্ণ এলাকা এ অঞ্চলের অমত্মর্ভুক্ত। এলাকাটি সমতল ডাংগা ও প্রশসত্ম বিলাঞ্চল দ্বারা গঠিত এবং ছোট বড় খাল দ্বারা বিভক্ত। মানুষের তৈরী উচু ডাংগা জমি সাধারণতঃ  বৃষ্টি বা জোয়ারের পানিতে পস্নাবিত হয় না। নিচু ডাংগা, বিল ও চর এলাকা বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে স্বল্প গভীরভাবে পস্নাবিত হয়। এ কটাল পলল ভূমির সমূদয় পলি গাংগেয় উৎস হতে আগত এবং নতুন অবস্থায় চুনযুক্ত।

 

খ) নতুন মেঘনা মোহনা পলল ভূমি (&এইজেড-১৮)ঃ জেলার পূর্বাংশে বিসত্মৃত এবং সমতল প্রশসত্ম ডাংগা ভূমি নিয়া গঠিত। এ এলাকা প্রধানতঃ বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে স্বল্প গভীরভাবে পস্নাবিত হয়, তবে নতুন চর এলাকা মাঝারি গভীরভাবে পস্নাবিত হয়।

 

 

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

ক) ভূমি ও মৃত্তিকা সম্পদের বৈশিষ্ট্যায়নঃ

 

১।         আধা বিসত্মারিত মৃত্তিকা জরিপের মাধ্যমে উপজেলা ভিত্তিক ভূমি ও মৃত্তিকা সম্পদ ব্যবহার নির্দেশিকা প্রণয়ন ও

হালনাগাদকরণ।

২।         ইউনিয়নওয়ারী ভূমি, মৃত্তিকা এবং সার সুপারিশ সহায়িকা প্রণয়ন।

 

খ) কৃষক সেবাঃ

 

১।         স্থায়ী মৃত্তিকা গবেষণাগারে মৃত্তিকা নমুন বিশেস্নষণ এবং বিশেস্নষণের ফলাফল ও ফসলের চাহিদা  অনুযায়ী সুষম সার সুপারিশ।

২।         ভ্রাম্যমাণ মৃত্তিকা পরীক্ষাগারের (এমএসটিএল) মাধ্যমে সরেজমিনে কৃষকের মাটি পরীÿা করে সুষম সার সুপারিশ।

৩।         টেকসই মৃত্তিকা ও ভূমি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে শস্য উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষকের মধ্যে মৃত্তিকা স্বাস্থ্য কার্ড বিতরণ।

৪।         ইউনিয়ন ভিত্তিক ভূমি শ্রেণির গড় উর্বরতা মানের ভিত্তিতে প্রধান প্রধান ফসলের জন্য সার সুপারিশ সম্বলিত ফেস্টুন বিতরণ।

 

গ)  আইসিটি সেবাঃ

 

১।         মোবাইল ফোন এবং সিআইসির মাধ্যমে ইনস্টিটিউট কর্তৃক সৃজিত মৃত্তিকা উর্বরতা বিষয়ক বিশাল তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে দেশের যেকোন অঞ্চলের কৃষকের চাহিদা অনুযায়ী ফসলের ডিজিটাল (অনলাইন) সার সুপারিশ।

২।         এসআরডিআই এর ডিজিটাল সার সুপারিশ ওয়েব সাইট www.frs-bd.com(http://www.frs-bd.com) ব্যবহার করে বাংলাদেশের প্রায় সমসত্ম ইউনিয়নের জমিতে ফসল ভিত্তিক সুষম সারের পরিমাণ জেনে নিন, অধিক ফসল ঘরে নিন। সুষম সার প্রয়োগ করলে ফলন বাড়ে, খরচ কমে, মাটির স্বাস্থ্য ভাল থাকে এবং ফসলে রোগ বালাই ও পোকার আক্রমন কম হয়।

 

ঘ) লবণাক্ততা পরিবীক্ষণঃ

১।    পটুয়াখালী জেলার মাটি ও পানির লবণাক্ততার দীর্ঘমেয়াদী পরিবীÿণ ।

 

ঙ)    মৃত্তিকা উর্বরতা পরিবীক্ষণঃ

১।    মৃত্তিকা উর্বরতার দীর্ঘমেয়াদী পরিবীÿণ।     

 

চ)    সমস্যাক্লিষ্ট মৃত্তিকা ব্যবস্থাপনা বিষয়ক গবেষণাঃ

১।    সমস্যাক্লিষ্ট মৃত্তিকা ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রযুক্তি উদ্ভাবন।

 

ছ)     প্রযুক্তি হসত্মামত্মরঃ

১।    মৃত্তিকা পরীক্ষাভিত্তিক সুষম সার ব্যবহার প্রযুক্তি সম্প্রসারণের লক্ষ্যে কৃষকের জমিতে প্রদর্শণী স্থাপন ও মাঠ দিবস

        বাসত্মবায়ন।

২।    কৃষির সাথে সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মীদেরকে ভূমি ও মৃত্তিকা ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান।

৩।    মাটির নমুনা সংগ্রহ ও সুষম সার ব্যবহার বিষয়ে কৃষক প্রশিক্ষণ প্রদান।

৪।    সরেজমিনে ভেজাল সার সনাক্তকরণ বিষয়ে জেলা, উপজেলা ও বস্নক পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তা, সারের ডিলার ও

        কৃষকদেরকে  প্রশিÿণ প্রদান।

৫।    প্রযুক্তি বিসত্মারের লক্ষ্যে ডকুমেন্টরী ফিল্ম, লিফলেট, পুসিত্মকা, পোষ্টার প্রকাশ/প্রদর্শন।

 

 

 

জ)    মানচিত্র প্রণয়নঃ

১।    ভূমি ব্যবহার মানচিত্র

২।    ভূপ্রকৃতি মানচিত্র

৩।    ভূমি ও মৃত্তিকা সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের মানচিত্র।

সিটিজেন চার্টার

 

১.     মৃত্তিকা উর্বরতা বিষয়ক তথ্য সরবরাহ।

২.     মৃত্তিকা পরীÿার ফলাফল ও উপজেলা নির্দেশিকার তথ্যের ভিত্তিতে ফসলের সার সুপারিশ প্রদান।

৩.     স্থানীয় পর্যায়ে কৃষি সম্প্রসারণ, কৃষি গবেষণা ও  কৃষি উন্নয়ন কর্মকান্ডে জড়িত বিভিন্ন সংস্থাকে মৃত্তিকা মানচিত্র, উপাত্ত,

        নির্দেশিকা ও সহায়িকা সরবরাহ এবং পরামর্শমূলক সেবা প্রদান।

৪.     প্রাকৃতিক দুর্যোগজনিত ÿতিগ্রস্থ এলাকা জরিপ করে মানচিত্র প্রণয়ন ও স্থানভিত্তিক তথ্য সরবরাহ করে স্থানীয়

        পর্যায়ে কৃষি পূণর্বাসনে সহায়তা প্রদান।

৫.     বিভিন্ন মেয়াদে সম্প্রসারণ কর্মী ও কৃষক প্রশিÿণ।

৬.     উপজেলা ভূমি ও মৃত্তিকা সম্পদ ব্যবহার নির্দেশিকা ও ইউনিয়ন সহায়িকা সরবরাহ।

৭.     কৃষি উন্নয়নের সাথে সংশিস্নষ্ট বিজ্ঞানী ও সম্প্রসারণ কর্মীদের দÿতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন মেয়াদে প্রশিÿণ প্রদান।

৮.     স্থায়ী গবেষণাগারে মাটির নমুনা বিশেস্নষণের মাধ্যমে সার সুপারিশ প্রদান।

৯.      ভ্রাম্যমান মৃত্তিকা পরীÿাগারের মাধ্যমে মাটির নমুনা বিশেস্নষণ করে  ফসল/ফসল বিন্যাস ভিত্তিক সার সুপারিশ প্রদান।

১০.    মাটির ভৌত, রাসায়নিক ও জৈবিক গুণাবলী বিশেস্নষণ করে মাটির স্বাস্থ্য কার্ড বিতরণ।

১১.    মাটি ও পানির লবণাক্ততা বিষয়ে সম্প্রসারণ কর্মী ও কৃষকদের তথ্য সরবরাহ।

 

  মাটির নমুনা বিশেস্নষণ ফিঃ

 

     মৃত্তিকা বিশেস্নষণের ধার্যকৃত ফি (প্যাকেজ হিসাবে কৃষকের জন্য)ঃ

১.   ভ্রাম্যমান মৃত্তিকা পরীÿাগারে কৃষকের নিকট হতে মাত্র ২৫.০০ টাকা ফি গ্রহণ করা হয়।

২.   স্থায়ী গবেষণাগারে কৃষকের নিকট হতে মাত্র ৩৫.০০ টাকা ফি গ্রহণ করা হয়।

 

   উপাদান অনুযায়ী মাটির নমুনা বিশেস্নষণের ফিঃ

 

  ১ম ক্যাটাগরী   #   কৃষক;

  ২য় ক্যাটাগরী   #    সরকারী/সায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান।

  ৩য় ক্যাটাগরী   #    সার ডিলার/উৎপাদনকারী/বেসরকারী সংস্থা/ব্যবসা প্রতিষ্ঠান/প্রকল্প।

 

ক)    প্রতিটি মাটির নমুনার বিশেস্নষণ ফি (টাকা)

 

 

১ম ক্যাটাগরী

২য় ক্যাটাগরী

৩য় ক্যাটাগরী

১. প্রতিক্রিয়া (পিএইচ)

৩.০০

২৫.০০

৫০.০০

২. জৈব পদার্থ

১০.০০

১০০.০০

২০০.০০

৩. নাইট্রোজেন(টোটাল/লভ্য)

১০.০০

১০০.০০

২০০.০০

৪. ফসফরাস

১০.০০

৬০.০০

১২০.০০

৫. গন্ধক

৫.০০

৬০.০০

১২০.০০

৬. বিনিময়যোগ্য পটাশিয়াম

৫.০০

৫০.০০

১০০.০০

৭. বোরণ

১০.০০

১০০.০০

২০০.০০

ছবি নাম মোবাইল
মোঃ ইখতিয়ার উদ্দিন ০১৭১৮৬৮০৬১৮

ছবি নাম মোবাইল
মোঃ ইখতিয়ার উদ্দিন ০১৭১৮৬৮০৬১৮

0

মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট

পটুয়াখালী জেলা কার্যালয়